টাকা বিবাদ! আহত ২ মহিলা সহ ৪

[pullquote align="normal"] [/pullquote]

মালদাঃ শ্রমিক সরবরাহের পাওনা টাকা নিয়ে বিবাদের জেরে আহত একই পরিবারের দুই মহিলা সহ ৪জন। অভিযোগের তীর স্থানীয় ঠিকাদারের বিরুদ্ধে। গুরুতর আহত দুইজন মালদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। ঘটনাটি ঘটেছে মালদার বৈষ্ণবনগর থানার কৃষ্ণপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের মন্ডায় এলাকায ঘটনার তদন্তে নেমেছে পুলিশ।
               

জানা গিয়েছে আহতরা হলেন সাগর প্রামানিক ও তার স্ত্রী আশিকা প্রামানিক, দাদা বৃন্দাবন প্রামাণিক ও তার স্ত্রী ফাল্গুনী প্রামানিক। তার পরিবারের সদস্যরা জানাই গত কয়েকমাস আগে স্থানীয় ঠিকাদার তফাজুল শেখ সাগর প্রামানিককে শ্রমিকের কাজে নিয়োগ করে কলকাতায় বিল্ডিং এর কাজে পাঠায়। কিন্তু তাকে এক টাকাও দেয়নি বলে অভিযোগ। তার পারিশ্রমিক বাবদ ৫০ হাজার টাকা হয়ে দাঁড়ায়। কিন্তু সে বারবার টাকা চাইলেও তফাজুল ওই টাকা দিচ্ছিল না। ফলে বাধ্য হয়ে সাগর কলকাতার ঠিকাদারকে সমস্ত ঘটনা জানাই। এরপর কলকাতা ঠিকাদার তফাজুলকে ডেকে টাকা না দেয়ার কারণে অপমান ও গালিগালাজ করতে থাকে। এরপর তফাজুল মালদায় নিজের বাড়িতে ফিরে আসে। ইতিমধ্যে সাগর বাড়িতে ফিরে আসে। অভিযোগ এর পর থেকে তফাজুল তাকে অপমানের প্রতিশোধ নেওয়ার জন্য বিভিন্ন সময় মারধর ও প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে আসছিল। ফলে সাগর ও তার পরিবারের সদস্যরা কার্যত ঘর বন্দী অবস্থায় দিন কাটাচ্ছিল। এরই মধ্যে সাগর গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়ে। এদিন রাত্রিবেলা স্থানীয় ডাক্তারকে দেখিয়ে বাড়ি ফেরেন। সে এদিন বাড়ির বারান্দায় বসে ছিলেন। সেই সময় তফাজুল দলবল নিয়ে এসে সাগরকে বেধড়ক মারধর শুরু করে। ঘটনা দেখতে পেয়ে তার স্ত্রী দাদা বৃন্দাবন ও বৌদি বাঁচাতে আসলে তাদেরকেও ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে খুনের চেষ্টা করে বলে অভিযোগ। এতে তারা গুরুতর আহত হয়। তাদের চিৎকার চেঁচামেচি শুনে প্রতিবেশীরা ছুটে আসলে অভিযুক্তরা সেখান থেকে পালিয়ে যায়। পরিবারের চার সদস্যকে গ্রামবাসীরা উদ্ধার করে স্থানীয় স্বাস্থ্য কেন্দ্রে নিয়ে যায়। সেখানে বৃন্দাবনের স্ত্রী চিকিৎসাধীন। বাকি তিনজনকে মালদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে। তাদের মাথায় ও শরীরের বিভিন্ন জায়গার আঘাত রয়েছে।  সাগর ও বৃন্দাবনের অবস্থা আশঙ্কাজনক রয়েছে। ঘটনার পর আহতের পরিবারের পক্ষ থেকে বৈষ্ণবনগর থানায় তফাজুল সহ সাত জনের নামে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। গোটা ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।
[pullquote align="normal"] [/pullquote]
Powered by Blogger.