‘অনুমতি ছাড়াই অভিনেত্রীর পোশাক খুলতে বলেছিল’

[pullquote align="normal"] [/pullquote]

ক্রমশ ছড়িয়ে চলেছে #মিটু মুভমেন্ট। ইন্ডাস্ট্রির নামী ব্যক্তিদের নাম একে একে উঠে আসছে এই তালিকায়। তনুশ্রী দত্তর হাত ধরেই এই ক্যাম্পেন প্রবেশ করে ভারতে।

সম্প্রতি আবারও শকিং রেভেলেশন করলেন অভিনেতা। তিনি জানান, ২৫ বছর আগে আমি ধর্ষণের একটি দৃশ্য শ্যুট করছিলাম। সেই ছবির পরিচালক আমায় বলেছিল অভিনেত্রীর সঙ্গে দৃশ্যটি শ্যুট করতে করতে তার পোশাক টেনে ছিঁড়ে ফেলতে। কিন্তু আমি রাজি হইনি। কারণ মেয়েটি এই জামা-কাপড় ছিঁড়ে ফেলার বিষয় কিছুই জানতো না। পরিচালক আমায় বারবার বারণ করেছিলেন মেয়েটিকে জানাতে। আমি ভীষণই বিরক্ত হই তার প্রস্তাবে। সরাসরি না করে দেই।আর চুপ করে নেই কেউ। বহু সাধারণ এবং বলিউডের সঙ্গে যুক্ত মহিলারা মুখ খুলতে শুরু করেছেন। অন্যদিকে অভিনেতা দলিপ তাহিল অভিনেত্রীর অনুমতি নিয়ে ধর্ষণের দৃশ্য শ্যুট করায় শোরগোল ফেলে দিয়েছেন বলিউড পাড়ায়।
অভিনেতা আরও বলেন, আমি পরিচালকের কথা না শুনেই মেয়েটিকে গিয়ে সব জানাই। কারণ সেই মেয়েটি ইন্ডাস্ট্রিতে নতুন ছিল। মেয়েটি সব জেনে কান্নায় ভেঙে পড়ে। তারপর ছুটে নিজের রুমে চলে যায়। আর পরিচালকও সেট থেকে সেই সময় পালিয়ে গিয়েছিল। দলিপ এই অভিযোগ জানাবার সময় পরিচালক এবং সেই অভিনেত্রীর নাম গোপনেই রেখেছিলেন।
প্রসঙ্গত, যেই অভিনেত্রীর সঙ্গে ধর্ষণের দৃশ্য শ্যুট হবে তার অনুমতি ছাড়া কিছুতেই সেই দৃশ্য শ্যুট করতে রাজি ছিলেন না তিনি। অভিনেত্রীর কনফার্মেশন লেটার পেয়েই তবে তিনি রাজি হয়েছেন। দৃশ্যটি দলিপের সঙ্গে শ্যুট করতে অভিনেত্রীর যেন কোনও জড়তা বা ডিসকমফার্ট না থাকে।
#মিটু’র ধাক্কায় বেশ ওয়াকিবহল হয়েছেন অভিনেতা। কোনও রকম ঝুকি নিতে তিনি রাজি নন। তবে লিখিত অনুমতিতে থেমে থাকেননি তিনি। ভিস্যুয়াল প্রমাণও নিয়ে রেখেছেন।
আসল কারণ হল অভিনেত্রী জয়া প্রদা। বহু বছর আগে জয়া প্রদার সঙ্গে একটি ছবির শ্যুটিং করছিলেন তিনি। জানা গিয়েছিল, ছবিতে একটি ঘনিষ্ঠ দৃশ্য শ্যুট করতে গিয়ে জয়াকে এমন ভাবে চেপে ধরেছিলেন দলিপ, যে তাকে ছাডানো জয়ার পক্ষে মুশকিল হয়ে গিয়েছিল। তাই তিনি সকলের সামনে দলিপকে থাপ্পড় মেরেছিলেন। সেই ভয়ই এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বলে অনুমান করেছেন অনেকে।
[pullquote align="normal"] [/pullquote]
Powered by Blogger.