ভারত সরকারকে ধন্যবাদ জানালো বিএনপি

[pullquote align="normal"] [/pullquote]


সাইফুল আলম, বাংলাদেশ :বাংলাদেশের ২০ দলীয় জোট বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য সালাহ উদ্দিন আহমদকে বেকসুর খালাস দেওয়ায় ভারত সরকারকে ধন্যবাদ জানিয়েছে বিএনপি।

শনিবার (২৭ অক্টোবর) সকালে নয়াপল্টনে দলটির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী এ ধন্যবাদ জানান।

রিজভী বলেন, ‘বিএনপি জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য সালাহ উদ্দিন আহমেদকে ভারতের শ্রিলং-এর আদালত বেকসুর খালাস দিয়েছেন। এই রায়ে ভারতের বিচার ব্যবস্থার নিরপেক্ষতা ও স্বাধীনতা সম্পর্কে আমাদের শ্রদ্ধা আরও বৃদ্ধি পেলো।’
‘আমি ভারত সরকারকে ধন্যবাদ জানাতে চাই, স্বচ্ছ ও নিরপেক্ষ আইনি প্রক্রিয়া নিশ্চিত করার জন্য। আমরা আশা করব, যথাযথ প্রক্রিয়ার মাধ্যমে সালাহ উদ্দিন আহমদকে আমাদের মাঝে ফিরিয়ে দেওয়া হবে’- বলেন রিজভী।

‘জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতারা দেশে একটি অস্বাভাবিক পরিস্থিতি চান। সদ্যগঠিত এই জোটের নেতারা আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন চান কী না, তা নিয়ে সংশয় রয়েছে’- শুক্রবার দলীয় সভায় দেওয়া প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এই বক্তব্য প্রসঙ্গে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব বলেন, ‘ শেখ হাসিনার অধীনে কোনো নির্বাচন সুষ্ঠু হয়নি এবং হবে না। তার অধীনে নির্বাচনে যাওয়ার প্রশ্নই ওঠে না। বিএনপি যে নির্বাচন করবে সেটি নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে, দেশনেত্রী খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে।’

তিনি বলেন, ‘বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর অধীনে যত ভোট হয়েছে, তা সন্ত্রাসমুখর, উৎসবমুখর নয়। ভোট ডাকাতি হয়েছে। জনগণকে ভোট দিতে দেওয়া হয়নি। জনগণের অধিকার কেড়ে নেওয়া হয়েছে। সুতরাং জনগণের মনে বড় ধরনের সংশয় হচ্ছে যে, শেখ হাসিনাই নির্বাচন করবেন না। কারণ সুষ্ঠু, অবাধ ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন হলে তার ১২টা বাজবে। এই কারণেই তিনি একতরফা নির্বাচনেরই যোগাড়যন্ত্র করছেন। নির্বাচন কমিশনকে দিয়ে নানা ধরনের নীল নকশা আঁটছেন।

‘প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশ্যে বলতে চাই, একনায়কতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করতে গিয়ে আপনি দেশে অস্বাভাবিক পরিবেশ তৈরি করেছেন। একের পর এক কালা কানুন প্রণয়নের মাধ্যমে মত প্রকাশের স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ করে আপনারা হানাদারি শাসন টিকিয়ে রাখতে চাচ্ছেন। কিন্ত আপনাদের সে আশা পূরণ হবে না। নিরপেক্ষ সরকার ছাড়া দেশে কোন নির্বাচন হতে দেওয়া হবে না’- বলেন রুহুল কবির রিজভী।

শনিবার (২৭ অক্টোবর) খুলনা, রাজশাহী, রংপুর, ফরিদপুর, চট্টগ্রাম, সিলেট, ময়মনসিংহ ও কুমিল্লা অঞ্চলে ইভিএম মেলা আয়োজন করেছে নির্বাচন কমিশন।

ইভিএম মেলাতে বিএনপি বা অঙ্গ সংগঠনের কোন নেতা-কর্মী অংশগ্রহণ করবে না জানিয়ে রিজভী বলেন, ‘জনগণের সকল মতামতকে উপেক্ষা করে ভোট কারচুপির জন্য সরকারি হুকুমে ইলেক্ট্রনিক ভোটিং মেশিন-(ইভিএম) ব্যবহার করতে দেশের আটটি অঞ্চলে ইভিএম মেলা করতে যাচ্ছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। দেশে দেশে প্রত্যাখাত ও বির্তকিত ইভিএম ব্যবহার করে নির্বাচন কমিশন পাতানো নির্বাচন করতে চাচ্ছে। বিএনপি এসব ইভিএম মেলার প্রতিবাদ ও প্রত্যাখান করছে।’

বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা তৈমুর আলম খন্দকার, বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক নজরুল ইসলাম মঞ্জু, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক এবিএম মোশারফ হোসেন, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সালাম আজাদ, সহ- দফতর সম্পাদক মুনির হোসেনসহ অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন।
.........

[pullquote align="normal"] [/pullquote]
Powered by Blogger.